| |
ভিডিও
ads for promotions
/
প্রতিদিন একটির বেশি ওষুধ কারখানা অনুমোদন, অর্ধেকের বেশিহার্বাল

প্রতিদিন একটির বেশি ওষুধ কারখানা অনুমোদন, অর্ধেকের বেশিহার্বাল

নিউজ ডেস্ক: নাগরিক আলো

প্রকাশিত: 06 July, 2024

  • 22
২০২৩ সালের ২৬ নভেম্বর থেকে ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত ছয় মাসে ১২০টি নতুন প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর। এই ছয় মাসের মধ্যে মোট কর্মদিবস ছিল ১০৩টি। সেই হিসাবে দিনে গড়ে একটির বেশি কারখানা অনুমোদন পেয়েছে, যার বড় অংশই ইউনানি, হারবাল ও আয়ুর্বেদিক।

হঠাৎ এত বেশি ওষুধ কারখানা অনুমোদন নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে সংশ্লিষ্ট মহলে। দীর্ঘদিন ধরে এ খাতের ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যবসায়ী ও বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ মনে করছেন, কিছু মানুষ কালোটাকা বিনিয়োগ এবং ব্যাংক থেকে মোটা অঙ্কের ঋণ নেওয়ার জন্যই কারখানার অনুমোদন নিয়ে থাকতে পারেন। কেউ হয়তো গ্রামাঞ্চলে তৈরি হওয়া বাজার ধরতে নতুন কারখানা গড়ছেন, আবার অনেকে প্রতিবেশী দেশের গণমাধ্যমে ব্যাপক প্রচার দেখে বাংলাদেশও আয়ুর্বেদিক ওষুধের বড় বাজার হবে বলে মনে করছেন।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ ইউসুফ আজকের পত্রিকাকে বলেন, ঔষধ ও কসমেটিকস আইন পাস হওয়ার পর অনেকে নতুন প্রকল্প নিচ্ছেন। অনেকের ওষুধের ব্যবসা রয়েছে। তাঁরা নতুন করে ইউনানি, হারবাল ও আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরির প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। এ কারণে নতুন প্রকল্প বেশি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

দেশে বর্তমানে সব ধরনের ওষুধ তৈরির প্রতিষ্ঠান রয়েছে হাজারখানেক। অ্যালোপ্যাথিক কোম্পানিগুলোর মধ্যেও ৩০-৪০টি প্রতিষ্ঠান চাহিদার মান ঠিক রেখে চাহিদার ৯৫ শতাংশ ওষুধ তৈরি করছে। অন্যগুলোর অবস্থা খুবই নাজুক; বিশেষ করে বিকল্প ওষুধের ক্ষেত্রে খুবই সমস্যা হচ্ছে। এগুলোর গুণমান ও দাম—কোনোটিই নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে নতুন প্রকল্প অনুমোদনের কোনো প্রয়োজন নেই বলে মনে করেন ওষুধশিল্পের মালিক ও বিশেষজ্ঞরা।


বাংলাদেশ ঔষধ শিল্প সমিতির মহাসচিব এস এম সফিউজ্জামান বলেন, নতুন প্রকল্প অনুমোদনের সময় অনেকে জমি ভাড়া নিয়ে নিজেদের বলে চালিয়ে দিচ্ছেন। দেশে এত ওষুধ কারখানা অনুমোদনের প্রয়োজন নেই।


ওষুধের মান খারাপ হলেও পার পেয়ে যাওয়া এবং কালোটাকা বিনিয়োগের সুযোগ থাকায় ওষুধ কারখানা অনুমোদন নেওয়ার হিড়িক পড়েছে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লিনিক্যাল ফার্মেসি অ্যান্ড ফার্মাকোলজি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক মনীর উদ্দিন আহমেদ। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, দেশে অবৈধ পন্থায় উপার্জনকারী কালোটাকার মালিকেরা নতুনভাবে ওষুধে বিনিয়োগ করছেন। ওষুধের মান খারাপ দিলে সাধারণ মানুষ চ্যালেঞ্জ করতে পারে না। ওষুধ কোম্পানিগুলো দেশের মানুষের অসহায়ত্বের সুযোগ নিচ্ছে। তারা আগ্রাসী বিনিয়োগ করছে এবং কমিশন-বাণিজ্যের মাধ্যমে বছরে ১০ হাজার কোটি টাকা চিকিৎসকদের পকেটে দিচ্ছে।


মনীর উদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, দেশে মোট ওষুধের ৯২-৯৫ শতাংশ উৎপাদন করছে ৩০-৪০টি কোম্পানি। অবশিষ্ট ওষুধ তৈরি করছে নামসর্বস্ব প্রতিষ্ঠান। দেশে বর্তমানে ৯৮ শতাংশ ওষুধ তৈরি হচ্ছে। নতুন করে আর কোম্পানির দরকার নেই।


ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের গত ৫ বছরের তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে এই সময়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ওষুধ কারখানার অনুমোদন পেয়েছে গত নভেম্বর থেকে এপ্রিলে। অধিদপ্তর ২০২০ সালে ২০টি, ২০২১ সালে ২৪টি, ২০২২ সালে ২৯টি, ২০২৩ সালে ৭৫টি এবং ২০২৪ সালের ২৯ এপ্রিল পর্যন্ত ৬০টি কারখানার অনুমোদন দেয়।

২০২৩ সালের ২৬ নভেম্বর ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের প্রকল্প অনুমোদন কমিটির ১১৩তম সভায় ৬৫টি নতুন প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। আর চলতি বছরের ২৯ এপ্রিল ১১৪তম সভায় অনুমোদন দেওয়া হয় ৫৫টি নতুন কারখানার। এসব নতুন কারখানার মধ্যে ২৫টি অ্যালোপ্যাথিক, ৬৫টি হারবাল, ১৩টি ইউনানি, হোমিওপ্যাথি ৪টি, আয়ুর্বেদিক ৭টি, মেডিকেল ডিভাইস ২টি, কসমেটিকস ২টি ও ১টি ফিড কারখানা রয়েছে।


সম্প্রতি সবচেয়ে বেশি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে ঢাকা জেলায়। ঢাকায় ১৪টি হারবাল, ২টি অ্যালোপ্যাথিক, ১টি ইউনানি, ২টি হোমিওসহ মোট ১৯টি কারখানার অনুমোদন পেয়েছে এ সময়ে। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কারখানা অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বগুড়ায়। সেখানে হারবাল ৮টি, আয়ুর্বেদিক ৩টি, ইউনানি ৩টি ও অ্যালোপ্যাথিক ২টিসহ মোট ১৬টি কারখানা অনুমোদন পায়। এ ছাড়া গাজীপুরে ৫টি হারবাল ও ৬টি অ্যালোপ্যাথিক মিলিয়ে মোট ১১টি, নারায়ণগঞ্জে ১টি আয়ুর্বেদিক, ২টি হারবাল এবং ১টি করে অ্যালোপ্যাথিক ও ইউনানি কারখানা অনুমোদন পেয়েছে।


বগুড়ায় এক ওষুধ ব্যবসায়ী নিজের এবং আত্মীয়স্বজনের নামে ৮টি কারখানা অনুমোদন নিয়ে রেখেছেন বলে জানা গেছে। জেলাটিতে নতুনভাবে অনুমোদন পাওয়া একটি আয়ুর্বেদিক কোম্পানির মালিক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমরা বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের তালিকাভুক্ত। ওষুধ প্রশাসন থেকে প্রকল্প অনুমোদন দেখিয়ে আমরা চাইলে ব্যাংক থেকে চাহিদা অনুযায়ী ঋণ নিতে পারব।’


রাজশাহীতে অনুমোদন পাওয়া মেসার্স এভালন হারবাল অ্যান্ড নিউট্রাসিউটিক্যালস কারখানায় গত বুধবার বিকেলে গিয়ে দেখা গেছে, পাঁচতলা ভবনের সামনে ‘মুসলিম মেডিল্যাব’ নামে রাঙাপরি গ্রুপের একটি ওষুধ কোম্পানির সাইনবোর্ড। এভালন হারবাল অ্যান্ড নিউট্রাসিউটিক্যালসের লাইসেন্স নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান মাসুম সরকার বলেন, চালু কারখানায় বাড়তি দেড় থেকে আড়াই হাজার বর্গফুট জায়গা থাকলে হারবালের লাইসেন্স নেওয়া যায়। ঔষধ প্রশাসন প্রাথমিকভাবে অনুমোদন পেলেও সবাই উৎপাদনে আসতে পারে না।


হারবাল প্রোডাক্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক মুনসি দারুল ইসলাম বলেন, দেশে ওষুধে আগ্রাসী বিনিয়োগ হচ্ছে। চাহিদা ও উৎপাদনের সঙ্গে কোনো মিল নেই। প্রকল্প অনুমোদন নিয়ে ব্যাংকঋণ নেবে। ভারতসহ বিশ্বের অনেক দেশে ওষুধ উৎপাদনকারী মার্কেটিং করে না। সেখানে দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হচ্ছে। দেশে এটি করা হলে দুর্বল কোম্পানিগুলো সবল হতো।


ঔষধ প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী, দেশে অ্যালোপ্যাথিক ওষুধ কারখানা রয়েছে ৩১৫টি। এগুলোর মধ্যে বন্ধ রয়েছে ৬৪টি। ইউনানি ২৮৭টির মধ্যে বন্ধ ১৯টি। আয়ুর্বেদিক ২০৫টির মধ্যে ১৬টি, হারবাল ৪৪টির মধ্যে ৩টি এবং হোমিও ৭১টির মধ্যে বন্ধ রয়েছে ১৭টি। অর্থাৎ ৯২২টি কারখানার মধ্যে বন্ধ রয়েছে ১১৯টি। এসব কারখানা দেখভাল করার মতো পর্যাপ্ত জনবল অধিদপ্তরের নেই।


ছয় মাসে ১২০টি নতুন কারখানা অনুমোদন দেওয়াকে লুটপাট বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ হেলথ কনজ্যুমারস রাইট ফোরাম। সংগঠনের সদস্যসচিব ইবনুল সাঈদ রানা বলেন, সরকারের দুর্বলতায় ঔষধ প্রশাসনে লুটপাট চলছে, যা মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। এসব অনিয়ম জনগণের সামনে তুলে ধরার অনুরোধ করেন তিনি।


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক আব্দুল হামিদ বলেন, দেশে বর্তমানে ওষুধের চাহিদা কী পরিমাণ রয়েছে, কত উৎপাদিত হচ্ছে, তার একটি মূল্যায়ন করে নতুন কারখানা অনুমোদন দেওয়া দরকার। চাহিদার তুলনায় বেশি ওষুধ তৈরি হলে আগ্রাসী বাণিজ্য এবং পুশ সেল বাড়বে।


ঔষধ প্রশাসনের অনিয়ম নিয়ে ২০১৫ সালে গবেষণা চালায় ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল, বাংলাদেশ (টিআইবি)। প্রকল্প স্থানান্তর বা হস্তান্তরের সময় ১৫ লাখ, ছাড়পত্রে ৫-১০ লাখ, লাইসেন্স নবায়নে ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ, রেসিপি অনুমোদন ৪-৫ হাজার, ওষুধ নিবন্ধন ১ থেকে দেড় লাখ পর্যন্ত ঘুষ লেনদেনের তথ্য উঠে আসে এতে।


নতুন ওষুধ কারখানা অনুমোদনের ক্ষেত্রেও এমন অর্থ লেনদেন হয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখার দাবি তুলেছেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, ওষুধের মান খুব গুরুত্বপূর্ণ। যাদেরকে তড়িঘড়ি ওষুধ তৈরির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, তাদের সে সক্ষমতা আছে কি না, যথাযথ নিয়ম অনুসরণ করে প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে কি না, বিষয়টি ক্ষতি দেখতে হবে। ওষুধের মান দেখার দায়িত্ব ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের। তারা যদি রক্ষকের জায়গায় ভক্ষকের ভূমিকা পালন করে, সেটি খতিয়ে দেখতে হবে এবং তাদেরকে জবাবদিহির আওতায় আনতে হবে।


Share On:

0 Comments

No Comment Yet

Leave A Reply

Nagorik Alo is committed to publish an authentic, Informative, Investigate and fearless journalism with country’s people. A highly qualified and well knowledged young team of journalists always fetch real news of the incidents or contemporary events. Providing correct news to the country's people is one kinds of community service, Keeping this in mind, it always publish real news of events. Likewise, Nagorik Alo also promised to serve the Bangladeshi people who reside in out of the country.

সম্পাদক : মোঃ ইলিয়াস হোসেন ব্যবস্থাপনা সম্পাদক : আরিফুর রহমান info@nagorikalo.com যোগাযোগ : 30/A, সাত্তার সেন্টার ( হোটেল ভিক্টরি) লেভেল 9, নয়া পল্টন, ঢাকা--১০০০ +8801753634332

© ২০২৩ nagorikalo.com